পূর্ব বাংলার আন্দোলন ও জাতীয়তাবাদের উত্থান ( ১৯৪৭ – ১৯৭০ )

১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট রাতে ভারতবর্ষে ব্রিটিশ শাসনের অবসান ঘটে ।  জন্ম নেয় ভারত এবং পাকিস্তান নামে দুটি স্বাধীন রাষ্ট্র । ১৯৪৭ সালে ১৪ আগস্ট জন্ম হয় পাকিস্তানের  এবং ১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্ট জন্ম হয় ভারতের । পূর্ববাংলা পাকিস্তানের একটি প্রদেশ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় এ অংশের নাম হয় পূর্ব পাকিস্তান । মূল পাকিস্তান পশ্চিম পাকিস্তান […]

স্বাধীন বাংলাদেশ

 ১৯৭১ সালে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভ করে । স্বাধীনতা লাভের জন্য বাঙালিরা অনেক দুঃখ কষ্ট ও ত্যাগ স্বীকার করেছে । ১৯৭০ সালে আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে তৎকালীন পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে  । পাকিস্তানি শাসকদের শোষণের হাত থেকে মুক্তি লাভের আশায় পূর্ববাংলার জনগণ আওয়ামী লীগকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দেয় […]

বাক্যের শ্রেণীবিভাগ

স্বরভঙ্গি ও বাগভঙ্গি  ১)অ-নে-ক অ-নে-ক দিন আগে বাংলাদেশ বিজয় সিংহ নামে খুব সাহসী একজন রাজপুত্র ছিল ।  ২) প্রকৃতি কী সুন্দর সাজেই না সেজেছে!  ৩) তাজ্জব ব্যাপার !  ৪) দুঃখ বিনা সুখ লাভ হয় কি মহিতে ?  ৫) “ আমার মাথা নত করে দাও হে তোমার চরণধুলার তলে ।’  ৬) ‘ দীর্ঘজীবী হও ।’  ৭) […]

যতি বা ছেদচিহ্নের লিখন কৌশল

বাক্যের অর্থ সুস্পষ্টভাবে বুঝার জন্য বাক্যের মধ্যে বা বাক্যের সমাপ্তিতে কিংবা বাক্যে আবেগ ( হর্ষ , বিষাদ ), জিজ্ঞাসা ইত্যাদি প্রকাশ করার উদ্দেশ্যে বাক্য গঠনে যেভাবে বিরতি দিতে হয় এবং লেখার সময় বাক্যের মধ্যে তা দেখানোর জন্য যেসব সাংকেতিক চিহ্ন ব্যবহার করা হয় , তা-ই যতি বা ছেদচিহ্ন ।  নিচে বিভিন্ন প্রকার যতি চিহ্নের নাম, […]

উক্তি পরিবর্তন

কোন কথকের বাক কর্মের নামই উক্তি । উক্তি দুই প্রকার : প্রত্যক্ষ উক্তি ও পরোক্ষ উক্তি ।  প্রত্যক্ষ উক্তি: যে বাক্যে বক্তার কথা অবিকল উদ্ধুত হয়, তাকে প্রত্যক্ষ উক্তি বলে । যথা – তিনি বলেন, “বইটা আমার দরকার ।”  পরোক্ষ উক্তি : যে বাক্যে বক্তার উক্তি অন্যের জবানিতে রূপান্তিতভাবে প্রকাশিত হয়, তাকে পরোক্ষ উক্তি বলা […]

বাচ্য এবং বাচ্য পরিবর্তন

১) রবীন্দ্রনাথ “গীতাঞ্জলি ” লিখেছিন ।  ২) রবীন্দ্রনাথ কর্তৃক  “গীতাঞ্জলি” লিখিত হয়েছে ।  ৩) আমার খাওয়া হলো না ।  উপরের প্রথম বাক্যে কর্তার, দ্বিতীয় বাক্যে কর্মের, তৃতীয় বাক্যে ক্রিয়ার প্রাধান্য রয়েছে ।  বাক্যের বিভিন্ন ধরনের প্রকাশভঙ্গি কে বলা হয়  “বাচ্য” ।  বাচ্য প্রধানত তিন প্রকার : কর্তৃবাচ্য , ২) কর্মবাচ্য ও ৩) ভাববাচ্য  কর্তৃবাচ্য : […]

বাক্য প্রকরণ

বাক্যের লক্ষণ ও প্রকারভেদ :  ভাষার মূল উপকরণ বাক্য এবং বাক্যের মৌলিক উপাদান শব্দ ।  যে সুবিন্যস্ত পদসমষ্টির দ্বারা কোন বিষয়ে বক্তার মনোভাব সম্পূর্ণরূপে প্রকাশিত হয়, তাকে বাক্য বলে।  কতগুলো পদের সমষ্টিতে বাক্য গঠিত হলেও যে কোন পদ সমষ্টি বাক্য নয় । বাক্যের বিভিন্ন পদের মধ্যে পারস্পারিক সম্পর্ক বা থাকা অবশ্যক । এছাড়াও বাক্যের অন্তর্গত […]

সমাপিকা ,অসমাপিকা ও যেীগিক ক্রিয়ার প্রয়োগ

সমাপিকা ক্রিয়া: যে ক্রিয়াপদ দ্বারা বাক্যের ( মনোভাবের ) পরিসমাপ্তি হয় , তাকে সমাপিকা ক্রিয়া বলে । যেমন: ছেলেরা খেলা করছে । এ বছর বন্যায় ফসলের ক্ষতি হয়েছে । অসমাপিকা ক্রিয়া : যে ক্রিয়া দ্বারা বাক্যের পরিসমাপ্তি  ঘটে না , বক্তার কথা অসম্পূর্ন থেকে যায় , তাকে অসমাপিকা ক্রিয়া বলে । যেমন: ১) প্রভাতে সূর্য […]

কাল,পুরুষ এবং কালের বিশিষ্ট প্রয়োগ

কাল : ক্রিয়া সংঘটনের সময়কে কাল বলে । ১) আমরা বই পড়ি । “ পড়া “ ক্রিয়াটি এখন অর্থাৎ বর্তমানে সংঘটিত হচ্ছে । ২) কাল তুমি শহরে গিয়েছিলে । “ যাওয়া “ ক্রিয়াটি পূর্বে অর্থাৎ অতীতে সম্পন্ন হয়েছে । ৩) আগামীকাল স্কুল বন্ধ থাকবে । “ বন্ধ থাকা “ কাজটি পরে বা ভবিষ্যতে সম্পন্ন হবে […]

ক্রিয়াপদ

১) কবির বই পড়ছে । ২) তোমরা আগামী বছর মাধ্যমিক পরীক্ষা দেবে । ” পড়ছে “ এবং “ দেবে “ পদ দুটো দ্বারা কোন কার্য সম্পাদন করা বোঝাচ্ছে বলে এরা ক্রিয়াপদ । যে পদের দ্বারা কোনো কার্য সম্পাদন করা বোঝায় , তাকে ক্রিয়াপদ বলে । বাক্যের অন্তর্গত যে পদ দ্বারা কোনো পুরুষ কর্তৃক নির্দিষ্ট কালে […]