সেইদিন এই মাঠ

         জীবনানন্দ দাশ 

সেই দিন এই মাঠ স্তব্ধ হবে নাকো জানি – 

এই নদী নক্ষত্রের তলে 

সেদিন দেখিবে স্বপ্ন – 

সোনার স্বপ্নের সাধ পৃথিবীতে কবে আর ঝরে ! 

আমি চলে যাব বলে 

চালতাফুল কি আর বিজবে না শিশিরের জলে 

নরম গন্ধের ঢেউয়ে ? 

লক্ষ্মীপেঁচা গান গাবে নাকি তার লক্ষীটির তরে ? 

সোনার স্বপ্নের সাধ পৃথিবীতে কবে আর ঝরে ! 

চারদিকে শান্ত বাতি – ডিজে গন্ধ – মৃদু কলরব ; 

খেয়ানৌকাগুলো এসে লেগেছে চরের খুব কাছে ; 

পৃথিবীর এইসব গল্প বেঁচে র’বে চিরকাল ;- 

এশিরিয়া ধুলো আজ- বেবিলন ছাই হয়ে আছে । 

শব্দার্থ ও টীকা : সেইদিন এই মাঠ…কবে আর ঝরে – জীবনানন্দ দাশ প্রকৃতির কবি । প্রকৃতির রহস্যময় সৌন্দর্য তার কবিতায় মৌলিক প্রেরনা । তিনি জানেন বিচিত্র বিবর্তনের মধ্যেও প্রকৃতি তার রূপ-রস-গন্ধ কখনোই হারিয়ে ফেলবে না । তিনি যখন থাকবে না তখন ও প্রকৃতি তার অফুরন্ত ঐশ্বর্য নিয়ে মানুষের স্বপ্ন-সাধ ও কল্পনাকে তৃপ্ত করে যাবে । আলোচ্য অংশে কবি প্রকৃতির এই মহাত্ব্যকে গভীর তৃপ্তিও মহত্ত্বের সঙ্গে উপস্থাপন করেছেন । আমি চলে যাব বলে লক্ষীটির তরে – পৃথিবীতে কেউই চিরস্থায়ী নয় । প্রত্যেক মানুষকেই একসময় চলে যেতে হয় । কিন্তু শিশিরের জলে চালতা ফুলের রহস্যময় সৌন্দর্য সৃষ্টি হয় যুগ-যুগান্তে তার কোনো শেষ নেই । আর সেই শিশিরের জলে ভেজা চালতা ফুলের গন্ধের ঢেউ প্রবাহিত হতে থাকবে অনন্তকাল ব্যাপী । কবির এই রোদের মধ্যে প্রকৃতির এক শাশ্বতরূপ মূর্ত হয়ে উঠেছে, যেখানে লক্ষ্মীপেঁচাটির মহত্বের অনুভাবনাও ধরা দিয়েছে অসাধারণ এক তাৎপর্য । এশিরিয়া ধুলো আজ … – মানুষের গড়া পৃথিবীর অনেক সভ্যতা বিলীন হয়ে গেছে । এশিরিয় ও ব্যাবিলনীয় সভ্যতা এখন ধ্বংসস্তূপ ছাড়া কিছু নয় । কিন্তু প্রকৃতি তার আপন রূপ-রস-গন্ধ নিয়ে চিরকাল প্রাণময় থাকে । প্রকৃতির মধ্যে বিচিত্র গন্ধের আস্বাদ মৃদুমন্দ কোলাহলের আনন্দ , তার অন্তর্গত অফুরন্ত সৌন্দর্য কখনোই শেষ হয় না । কবিতাটিতে জীবনন্দদাস প্রকৃতির এই চিরকালীন সৌন্দর্যকে বিস্ময়কর নিপুণতায় উপস্থাপন করেছেন । 

পাঠ-পরিচিতি : সভ্যতা একদিকে যেমন ক্ষয়িষ্ণু অন্যদিকে চলে তার বিনির্মাণ । মরণশীল ব্যক্তি মানুষ মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে , কিন্তু প্রকৃতিতে থাকে চিরকালের ব্যস্ততা । মাঠে থাকে চঞ্চলতা , চালতাফুলে পড়ে শীতের শিশির , লক্ষ্মীপেঁচাকের কণ্ঠে ধ্বনিত হয় মঙ্গল বার্তা , খেয়ানৌকা চলে নদীনালাতে অর্থাৎ কোথাও থাকে না সেই মৃত্যুর রেশ । ফলে মৃত্যুতেই সব শেষ নয় , পৃথিবীর বহমানতা মানুষের সাধারণ মৃত্যুর রহিত করতে পারে না । প্রকৃতপক্ষে মানুষের মৃত্যু আছে কিন্তু এ জগতের সৌন্দর্যের মৃত্যু নেই , মানুষের স্বপ্নেরও মরণ নেই । 

Post Author: showrob

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 + 3 =